1. admin@vorersongbad.com : admin :
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ০৬:৪২ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি :
বাংলাদেশের জনপ্রিয় অনলাইন  নিউজ পোর্টাল "দৈনিক ভোরের সংবাদ" এ প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে আগ্রহীরা সিভি পাঠিয়ে দিন আমাদের ই–মেইলেঃ vorersongbad21@gmail.com মোবাইল নাম্বারঃ 01777602610/01779208393
শিরোনাম :
কাজিপুরে রাস্তা দখলের পায়তারা রায়গঞ্জে পাঙ্গাসী ইউনিয়ন উন্নয়ন ফোরামের অসহায় মানুষের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ রায়গঞ্জের চান্দাইকোনায় অবৈধ ভাবে গড়ে উঠেছে ভেজাল মাছ ও মুরগির খাদ্য উৎপাদন কারখানা ঈদুল আযহা উপলক্ষে হাটপাঙ্গাসীতে ভিজিএফ’র চাল বিতরণ রায়গঞ্জে হাটপাঙ্গাসী ইউনিয়নে ভিজি এফ চাল বিতরণ পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বিএনপি নেতা কামাল হোসেন  সিরাজগঞ্জের বিভিন্ন হাটে জমে উঠেছে কোরবানির পশুর হাট রায়গঞ্জে সহকারী কমিশনার ভূমি তানজিল পারভেজের বিদায় সংবর্ধনা হাটপাঙ্গাসীতে জমে উঠেছে কোরবানির পশুর হাট রায়গঞ্জের ভদ্রঘাট সড়কে হেলে পড়া ও মরা গাছগুলো অপসারণ চান এলাকাবাসী

ঋণ থাকলে কোরবানি হবে কি?

দৈনিক ভোরের সংবাদ নিউজ ডেক্স, অনলাইন থেকে নেওয়া
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ৫ জুন, ২০২৪
  • ১৮ বার পঠিত

ঋণ থাকলে কোরবানি হবে কি?

দৈনিক ভোরের সংবাদ নিউজ ডেক্স,অনলাইন থেকে নেওয়া

কোরবানি দেওয়ার মতো টাকার মালিক বা সম্পদ আছে কিন্তু ঋণগ্রস্ত; এ ব্যক্তির কোরবানির হুকুম কী? সে কি কোরবানি দিতে পারবে? কোরবানি না দিলে কি গোনাহ হবে? এ সম্পর্কে ইসলামের দিকনির্দেশনাই বা কী?কোনো ব্যক্তির জন্য যে পরিমাণ সম্পদ থাকলে কোরবানি ওয়াজিব বা আবশ্যক; সে পরিমাণ সম্পদের মালিক যদি ঋণগ্রস্ত হয় তবে তার কোরবানি দেওয়া আবশ্যক কি না তা নির্ভর করবে ওই ব্যক্তির অবস্থার ওপর। আর তাহলো- নেসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক যদি ঋণগ্রস্ত হয় তবে দেখতে হবে- ঋণের পরিমাণ কত? কেননা ঋণ পরিশোধ করে দিলে যে সম্পদ থাকবে, তা কি নেসাব পরিমাণ হবে? ১. ঋণ পরিশোধ করে দিলে কোরবানির সময়ে ঋণগ্রস্ত ব্যক্তির নেসাব পরিমাণ সম্পদ না থাকে তবে ওই ঋণগ্রস্ত ব্যক্তির জন্য কোরবানি ওয়াজিব নয়। ২. ঋণ পরিশোধ করে দিলেও কোরবানির সময়ে সাময়িক ঋণগ্রস্ত ব্যক্তির নেসাব পরিমাণ সম্পদ থাকে, তবে ওই ঋণগ্রস্ত ব্যক্তির জন্যও কোরবানি আবশ্যক। মনে রাখতে হবে নেসাব পরিমাণ সম্পদ সারাবছর গচ্ছিত বা জমা থাকাও আবশ্যক নয়। বরং কোরবানির দিনগুলোতে (১০, ১১ ও ১২ জিলহজ) যদি কারও কাছে ঋণ ও বাৎসরিক পারিবারিক খরচ মেটানোর পর অতিরিক্ত অর্থ থাকে তবে তার ওপর কোরবানি দেওয়া ওয়াজিব। আর সম্পদের নেসাব হলো- সাড়ে ৭ ভরি/তোলা স্বর্ণ এবং সাড়ে ৫২ ভরি/তোলা রুপা। সুতরাং পরিবারের খরচ মেটানোর পর যদি জিলহজ মাসের ১০, ১১ ও ১২ তারিখ নির্ধারিত পরিমাণ স্বর্ণ বা রুপা থাকে কিংবা নির্ধারিত পরিমাণ স্বর্ণ বা রুপার বাজার দর অনুযায়ী ৫০ হাজার থেকে ৪ লাখ টাকা থাকে ওই ব্যক্তির জন্য কোরবানি করা আবশ্যক। চাই সে ঋণগ্রস্ত হোক কিংবা না হোক। আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহর সব নেসাব পরিমাণ সম্পদের মালিককে যথাযথভাবে পরিশুদ্ধ নিয়তে কোরআন-সুন্নাহর বিধান অনুযায়ী কোরবানি করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Facebook Comments Box

এই সংবাদটি শেয়ার করুনঃ

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৪ "দৈনিক ভোরের সংবাদ"
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park